>

নন্দিতা ভট্টাচার্য

SONGSOPTOK THE WRITERS BLOG | 7/15/2015 |




                                            বাপের বাড়ি
   
বাপের বাড়ির তেল সিন্দুর ,মালিদের ফুল
                              
এমন খোঁপা বেঁধে দেব হাজার টাকা মূল.....

হারিয়ে যেতে যেতে অনেক কিছুই আমাদের জীবন থেকে হারিয়ে যাচ্ছে । অনেক অনেক পাওয়ার মাঝে কত কত কিছু যে উধাও হয়ে যাচ্ছে নিঃশব্দে । আমাদের অজান্তে গুটিয়ে নিচ্ছে হাত। আমরা সমৃদ্ধ হচ্ছি না নিঃস্ব হচ্ছি তাই বা কে জানে ।  অনেক দৃশ্যত ঝকমকে জীবনের দিকে পেছন ফিরছে অনেক  ভর ভরন্ত পাওয়া । সমবচ্ছর পরিশ্রম , একঘেয়ে দিন কাটাতে কাটাতে দম বন্ধ  । চল দীঘা পুরী ভাইজাগ আরও একটু  সাহসী  হলে হিমালয়  অব্দি পাঁচ সাত দশদিনের ট্যুর করে বাঙ্গালী তাতে মন চকাচক হয় বটে কিন্তু পূর্ণ  মন ও শরীরের বিশ্রাম  নৈব নৈব চ । বিশেষত মেয়েদের । না না মোটেই রে রে করে ছুটে আসা চলবে  না। যতই নারীবাদী নারীবাদী বল বাপু । নিজের বাড়ীটি ছেড়ে  কাদের নড়তে হয় ? হ্যাঁ !! যতই অসহ্য লাগুক জড় উপড়ে মেয়েরা চলে যায় একটি অচেনা উঠোনে , বাগান বদলে যায় । শেকড় ওপড়ানো গাছের আক্ষেপ থাকবেই যতই নারীবাদী নারীবাদী বলে ছ্যা ছ্যা কর !! পঁচিশ তিরিশ বছর বাপের বাড়িতে কাটান তারপর দুম করে অন্য একটি জমিতে পুতে দেয়া ! এখন আগের থেকে অনেক ভাল আছে ভাবলেও সত্যি কি আছে ! আগের থেকে দ্বিগুণ তিনগুন শিক্ষিত হওয়ার সুবাদে কাজ কর্ম কি দ্বিগুণ পরিমানে চেপে বসে নি ঘাড়ে । ব্যাংক রে পোস্ট অফিস রে বাজার রে  এ টি এম ইলেকট্রিক বিল ফোনের বিল অনলাইন পেমেন্ট হোয়াট নট --  ছেলেমেয়ের পড়াশোনা স্কুলের সমস্ত রকম হ্যাপা সামলান , কোনটা কমল । আমাদের মা জ্যাঠইমারা এগুলো থেকে রেহাই পেয়েছিলেন । তবে বিরাট একান্নবর্তী পরিবারের অন্দরমহল সামলাতে হত তাদের । এখন মেয়েরা কিছুই করে না ভাবার কোন কারণ নেই । তারপর অফিস কাছারি থাকলে তো সোনায় সোহাগা । যতই সমান সমান বলে চেঁচাও অফিস থেকে ফিরলে চা কে করবে ! তুমি না আমি ... কে প্রথম ......ভালবাসা মায়া মমতা দরজায়  দাঁড়ায় । না এত কিছু বেড়ান ... ছুটছাট কাছে পিঠে ঘুরে আসায় মন ভরে না ।  না না সেই রেফারেন্স টেনে লাভ নেই , মাম্মি কা ফোন আয়া , মাম্মি কা ফোন । আজকাল কনের  মায়েরা আকছার কন্যের বাড়িতে নাক গলান এবং তার থেকে বিভিন্ন রকম বিপত্তি । সকাল বিকেল মেয়ের বাড়িতে ফোন না করলে পেতের ভাত হজম হয় না তাদের ।  সেটা কপারসেন্টের কথা সেটা আমরা দিব্য ভুলে যাই । যে বিরাট শূন্যতা মনের কোনে উঁকি মারে তা হল নিপাট বাপের বাড়ি হারান । মেয়েরা আকছার সকাল বিকেল বাপের বাড়ি যাচ্ছে । কিন্তু কতজন

মনে পড়ে ছেলেবেলার কথা জ্যাঠিমা মা যেতেন বাপের বাড়ি । পিসিরা দিদিরা আসত বাপের বাড়ি । জ্যাঠাইমার বাপের বাড়ি বড়লোক তাই তিনি প্রায় তিনমাস থাকতেন । চার পাঁচ টি ভাইবোনের মধ্যে ছোট দুটি যেত । অন্য গুলোকে সামলাত বাড়ির লোক । মায়ের অত সাহস ছিল না তিনি নাহক এক মাসের জন্যে যেতেন । দিদিরা আসত  উৎসব অনুষ্ঠানে, কখনও এমনি পিসিরা তো বেশ দাপটের সঙ্গেই বাপের বাড়িতে থাকতেন । পিসিদের শাসনে আমরা বেশ সিটকে থাকতাম । এই নয় যে ওরা এলে আমরা ধেই ধেই করে নাচব । আমাদের যত দোষ ত্রুটি মায়েদের লাই দেয়ায় গড়ে উঠেছে সেটা শুধরে দেবার সম্পূর্ণ স্বাধীনতা তাদের ছিল । আমরা ঠিক ঠাক সকড়ি মানছি  কিনা , ঠাকুর দেবতায় ভক্তি আছে কি না । নিয়ম করে পেন্নাম ঠুকছি কি না তিন বেলা । পড়াশোনার সঙ্গে সঙ্গে গৃহকর্মে নিপুন হয়ে উথছি কি না । তার নজরদারি চলত। এবং কথায় কথায় শুনতে হত এগুলো ঠিকঠাক না শিখলে শ্বশুর বাড়ি থেকে ফেরত পাঠাবে । শ্বশুর বাড়ি জুজুবুড়ি দেখিয়ে কত কিছু বলে ফেলা । আর ফেরত এলে তো উপায় নেই । সুতরাং একেবারে তটস্থ ।  এই যে তারা আসছেন সে জন্যে বাড়িতে কারো মুখ হাঁড়ি করতে দেখিনি । বাচ্চাদের মজা ছিল বলাই বাহুল্য । সারা বছর অপেক্ষা কবে আরও পাঁচ সাত টি এসে জুটবে । বাড়ির আট ন খানা বাচ্চার সঙ্গে আরও চার পাঁচটি মিলে চরম হুজ্জতি চলবে। পড়াশোনা শিকেয় উঠবে । কোচিং ক্লাসের কচকচি ছিল না । তাই লেজকাটা বাদর প্রথম থেকেই । এ এক মচ্ছব । বছরের অন্যান্য মোচ্ছবের মত । শুধু একটি বাড়িতেই নয় । সব বাড়িতেই একরকম । বাড়িতে মেয়ে আসবে , সঙ্গে জামাই । শীতের দেশে থাকতেন তাই পুরোটা শীতই শ্বশুর বাড়িতে কাটত । তিনি আবার গরম জলের ভক্ত । খাওয়ার সময় , চানের সময় , হাত ধুতে , মুখ ধুতে গরমা গরম । তার জন্যে বাড়িতে হত নানা রকমের জলখাবার এক দুদিন নয় এই এত দিন ধরেএক এক বেলায় এক এক রকম ! যোগান দিয়ে গেছেন বাড়ির বউরা এবং সকলেই, শ্রদ্ধা সহকারে । বাড়িতে বিয়ে ভর পোয়াতি বাড়ির বড় বউ । এক দেড়মাস পরেই সময় । অক্লান্ত পরিশ্রম করে তুলে দিলেন অনুষ্ঠান যে যেখানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাক মূল অনুষ্ঠান কিন্তু বসত বাটিতে হত । এমনকি বাড়ির ছেলেরা বিয়ের পর  বউদের বাড়িতে রেখে  যাওয়াই রীতি ছিল । আস্তে আস্তে বদলাল নিয়ম । ছয় মাস এক বছর পর স্বামীর বাসা বাড়িতে যাওয়ার অনুমতি পাওয়া যেত । রেখে  যেতেন বাড়ির সকলের সঙ্গে পরিচিত হওয়ার  জন্যে । নতুন বউ নিয়ে টক করে বাসা বাড়িতে চলে যাবে নেচে নেচে সে হবার যো ছিল না । সেই বাড়িতে নতুন বিয়ে হওয়া বউ রেখে ছোট দুটিকে নিয়ে বাপের বাড়ি বিশ্রাম করতে গেলেন বড় বউসন্তান নিয়ে ফিরে এলেন তিন মাস পর । বাপের বাড়িতে থেকে যথেষ্ট চেহারা ছবি উজ্জ্বল হয়েছে । নাইওরের  গুণ
মা যেতেন বাপের বাড়ি । গেলেই প্রথম নজর দেয়া হতো শরীর স্বাস্থ্যে ।  মামা ডাক্তার । সব রকম পরীক্ষা নিরীক্ষা হত । কারণ চেহারা বেশ খারাপ হয়ে গেছে । যৌথ পরিবারে খেটে খেটে । ভিটামিন এল , ফল এল , নিয়ম করে দুধ খাওয়ান হত। জামা কাপড় ঠিকঠাক আছে কি না তা ও লক্ষ্য করা হত । তার সঙ্গে যেটি এসেছে তার তো আর আদরের সিমানা নেই । উদ্দাম আনন্দে আর দশটা বাচ্চার সঙ্গে দিন যাপন । বাড়ির মেয়েটি কি খেতে ভাল বাসে । সেই অনুযায়ী মেনু হত তখনকচুর লতি চিংড়ি মাছ বোয়াল মাছের লেজ চিতলের পেটি , মুইঠ্যা  পিঠে পুলি  সবই তার কথা ভেবেতারপর তো ছিল আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে নেতন্ন খেয়ে বেড়ান । বাড়ির মেয়ে এলে বাচ্চাদের দায়িত্ব থেকে সে মুক্তি পেত , একে নাওয়ান খাওয়ান । সব কিছুর দায়িত্ব অন্যে নিত  বিশেষত ছোট বোনেরা। হা করে বসে থাকা কখন বোনঝি বোনপো ঘুম থেকে জাগবে। আর তারপর শুরু হবে সব আতন যতন । আর বাপের আসা মেয়েটি তখন পাড়া বেরিয়ে আদর খাবে । শুধু বাড়ির নয় সারা পারার ই মেয়ে এসেছে। সেই বাপের বাড়ি আজ আর সেরকম হয় না । হারিয়ে যাওয়ার শূন্যতা । বাপের বাড়ি গিয়ে যে হাপ ছেড়ে বাঁচা , সে ছিল আসলে এক মুক্তির আনন্দ । আপন হারা প্রান ,বাঁধন ছেড়া প্রান।  সে যাত্রা ছিল দায়িত্ব মুক্তির। সকালে উঠে কি জলখাবার হবে দুপুরে কি রান্না হবে । মাথা ঘামিয়ে মেনু করা ,কোন কিছু নেই , কোন ভাবনা নেই । সারা দিন মানিয়ে চলা নেই । রোজকার থোড় বড়ি খাড়া নেই । নেই গর্জন তর্জন চোখ রাঙ্গানি।   এই দায়িত্ব মুক্তি স্বাধীন  স্বাধীন । বুকের ভেতর  চাপ নেই । ঘড়ি ধরে সকালে লাফ দিয়ে ওঠা নেই । এই নেই নেই  থেকে দু হাত তুলে মুক্তি আর এর ই নাম বাপের বাড়ি । তার তেল সিঁদুর মালীর ফুলের সুগন্ধ সবই সব কিছু থেকে আলাদা । সেই ফুল দিয়ে খোঁপা বাঁধলে ঝকমক করে ওঠে মন । সে খোঁপা আর কোথাও বাঁধলে এমন প্রাণ মেতে ওঠে না। সেই খোঁপায় আটকে থাকে হাজার হীরের ফুল । সেই স্বাধীনতার মূল্য হাজার টাকা , লক্ষ টাকা !

                                           ~~~~~~~~~~~


নন্দিতা ভট্টাচার্য
Comments
0 Comments

No comments:

Blogger Widgets
Powered by Blogger.